Breaking News
Home / Top / বিজেপিকে বাংলার মানুষ চিনত না, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বিজেপির সঙ্গে জোট করে তাদের হাত ধরে বাংলায় এনেছিলেন, তার পর ধীরে ধীরে তারা শিকড় ছড়িয়েছে,

বিজেপিকে বাংলার মানুষ চিনত না, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বিজেপির সঙ্গে জোট করে তাদের হাত ধরে বাংলায় এনেছিলেন, তার পর ধীরে ধীরে তারা শিকড় ছড়িয়েছে,

বঙ্গনুর ওয়েব নিউজ ;

বিধানসভা নির্বাচনের আগে তৃণমূল ও বিজেপির মধ্যে তুঙ্গে দলবদলের খেলা। আর তারই মধ্যে ২ দলকে একসঙ্গে বিঁধলেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীররঞ্জন চৌধুরী। বুধবার মৌলালির কাছে রামলীলা ময়দানে রাজ্যে বিজেপির উত্থানের জন্য তৃণমূলকে কাঠগড়ায় তোলেন তিনি। সঙ্গে বলেন, ব্রিটিশদের কায়দায় দেশকে ধর্মের নামে ভাগ করার কৌশল নিয়েছে বিজেপি।

এদিন অধীরবাবু বলেন, বিজেপিকে বাংলার মানুষ চিনত না। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বিজেপির সঙ্গে জোট করে তাদের হাত ধরে বাংলায় এনেছিলেন। তার পর ধীরে ধীরে তারা শিকড় ছড়িয়েছে। গত ১০ বছর ধরে তৃণমূল যে ভাবে বাম ও কংগ্রেসের ওপর অত্যাচার করেছে তাতে রাজ্যে ধর্মনিরপেক্ষ শক্তি দুর্বল হয়েছে। তাতে পথ আরও প্রশস্ত হয়েছে বিজেপির। কেউ ইমামদের ভাতা দিতে বলেনি। তাও উনি ভাতা দিয়েছেন। মুসলিমরা গরিব হতে পারে কিন্তু ভিখারি নয়।

বিজেপিতে ব্রিটিশের সঙ্গে তুলনা করে অধীর বলেন, ব্রিটিশরা আমাদের দেশ শাসনের জন্য ধর্মের নামে সমাজকে ভেঙেছিল। মুসলিমদের শত্রু হিসেবে দিখিয়েছিল তারা। কারণ তারা জানত, এদেশ শাসন করতে গেল ধর্মের নামে সমাজকে ভাঙতে হবে। কিন্তু স্বাধীনতার লড়াইয়ে দেশের সব ধর্মের মানুষ সামিল হয়েছিলেন। এখন ধর্মের নামে দেশ ভাগের একই রকম চেষ্টা করছে বিজেপি। আবার এক স্বাধীনতার লড়াইয়ের সময় এসেছে।বিজেপিকে অধীরের কটাক্ষ, রামের দেশে রাবণের তাণ্ডব চলছে।

বিধানসভা ভোটে বামেদের সঙ্গে জোট করে লড়াই করার জন্য প্রস্তুতি চালাচ্ছে কংগ্রেস। যদিও কংগ্রেস হাইকম্যান্ডের তরফে এখনো এব্যাপারে চূ়ড়ান্ত ছাড়পত্র মেলেনি। তবে নিজেদের মধ্যে আলোচনা জারি রেখেছে দুপক্ষ। দলীয় কর্মীদের চাঙ্গা রাখতে নিয়মিত বিজেপি ও তৃণমূলকে আক্রমণ করছেন অধীরবাবুও।

358 total views, 3 views today

Spread the love

About Banganur

Check Also

মনিটরিংয়ের অভাব, ৪ঘণ্টায় ভারতে নির্মিত ভ্যাকসিন কার্যকারিতা হারাবে

বঙ্গনুর ওয়েব নিউজ ;ভারতে নির্মিত কোভিশিল্ড কিংবা কোভ্যাকসিন খোলার ৪ঘণ্টার মধ্যে গ্রহীতার শরীরে পুশ করতে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

fourteen + nineteen =

x